One Bangladesh

বিএনপি কি স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তি পালনের নৈতিক অধিকার হারায়নি?

বিএনপি কি স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তি পালনের নৈতিক অধিকার হারায়নি?
১৯৭১-এর রাজাকার-খুনি-ধর্ষকদের সাজা মাফ
ত্রিশ লাখ মানুষের রক্তের সাগরের ওপর ১৯৭১ সালে যে স্বাধীন বাংলাদেশের জন্ম হয়েছে, সেই মুক্ত দেশে স্বাধীনতাবিরোধীদের পুনর্বাসিত করেছে স্বৈরাচার জিয়াউর রহমান। এজন্য শুরুতেই সে গণহত্যা ও ধর্ষণের মাস্টারমাইন্ড রাজাকারদের বিচারপ্রক্রিয়া নষ্ট করে দেয়। বঙ্গবন্ধু ১৯৭২ সালে দালাল আইন করে, ৭৩টি ট্রাইব্যুনাল গঠনের মাধ্যমে, এই বর্বর অমানুষদের বিচারের ব্যবস্থা করেছিলেন। কিন্তু ১৯৭৫ সালের ৩১ ডিসেম্বর, জিয়াউর রহমান নেতৃত্বাধীন মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী চক্র এক আদেশে সেই দালাল আইন বাতিল করে। এবং কমপক্ষে ১১ হাজার সাজাপ্রাপ্ত যুদ্ধাপরাধীকে কারাগার থেকে মুক্তি দেয়। এরপর, ১৯৭৬ সালের ১৮ জানুয়ারি, পাকিস্তানি থাকা বাংলাদেশ-বিরোধীদের নাগরিকত্ব ফিরে পাওয়ার জন্য মন্ত্রণালয়ে আবেদন করতে বলে । ফলে, পলাতক রাজাকাররাও বীরদর্পে ঢুকতে থাকে দেশে।
প্রসঙ্গত, স্বাধীনতার পর সবাইকে নিয়ে একসঙ্গে দেশ গড়ার জন্য একটা সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেন বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এটি নিয়ে কুচক্রীরা বলে যে, বঙ্গবন্ধু সবাইকে মাফ করে দিয়েছিলেন। কিন্তু এটি সত্য নয়। যারা ধর্ষণ-হত্যা-অগ্নিসংযোগ-লুটপাটের মতো জঘণ্য অপরাধে লিপ্ত ছিল, তাদের জন্য বিচারের ব্যবস্থা করে; যারা লঘু অপরাধে যুক্ত ছিল, তাদেরকে লঘু দণ্ড দিয়ে, সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেছিলেন বঙ্গবন্ধু। মানবতাবিরোধী অপরাধে ১৯৫ জন পাকিস্তানি সেনার বিচারের দাবিও জানিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু। এছাড়াও পাকিস্তানিদের এদেশীয় দোসর, যারা এসব ঘৃণ্য অপরাধে যুক্ত, তাদেরও বিচারপ্রক্রিয়া চলমান ছিল। প্রমাণিত এসব অপরাধীদের ছেড়ে দিয়ে তাদের লালন-পালন করেছে বিএনপি। স্বাধীনতার ৫০ বছরের বিএনপির সবচেয়ে বড় অর্জণ এটি।
আরও পড়ুনঃ https://albd.org/bn/articles/news/36147/

BNP #BoycottBNP #বিএনপি #সুবর্ণজয়ন্তী #মুক্তিযুদ্ধ